বৃহস্পতিবার, ১১ অগাস্ট ২০২২, ০৭:৪৩ অপরাহ্ন

এক মাস যাবৎ বন্ধ রাজবাড়ীর জৌকুড়া-নাজিরগঞ্জ নৌরুট

স্টাফ রিপোর্টার :
  • আপডেট টাইম : বৃহস্পতিবার, ৯ ডিসেম্বর, ২০২১
  • ৭০৬ বার পঠিত

রাজবাড়ীর জৌকুড়া-নাজিরগঞ্জ নৌরুটের পদ্মা নদীতে নাব্যতা সংকট ও অসংখ্য ডুবোচরের কারণে দীর্ঘ ১মাস যাবৎ ফেরী ও লঞ্চ চলাচল বন্ধ রয়েছে। এতে করে নৌরুট দিয়ে পারপার হওয়া যাত্রীদের দূর্ভোগ চরমে।

ঘাট কর্তৃপক্ষ সড়ক ও জনপথ বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, পদ্মা নদীতে ফেরি চলাচলে কমপক্ষে ১০ ফুট গভীরতা প্রয়োজন হলেও বর্তমানের গভীরতা কম রয়েছে। গত ০৮ই নভেম্বর থেকে ঘাট নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ রাজবাড়ীর সড়ক ও জনপদ (সওজ) বিভাগ নাব্যতা সংকটের কারণে গণবিজ্ঞপ্তি প্রকাশের মাধ্যমে নৌরুটে ফেরী চলাচল বন্ধ ঘোষণা করেছেন ।

সরজমিন ঘুরে দেখা গেছে, সড়ক ও জনপথ বিভাগ চন্দনী ইউনিয়নের ধাওয়াপাড়া বাজার থেকে জৌকুড়া ঘাটের কিছু অংশ ইটের রাস্তা তৈরি ও বাকি অংশের সংযোগ সড়কের কাজ করছে। ভেকু দিয়ে মাটি সরানো হচ্ছে। এছাড়া জৌকুড়া ঘাট থেকে প্রায় ১ কিলোমিটার দুরে একটি অস্থায়ী ট্রলার ঘাট তৈরি করে পারাপার করা হলেও সংযোগ সড়ক না থাকায় ঘাটে যেতে হচ্ছে ঘোরার গাড়ি অথবা পায়ে হেটে। ফেরি ও লঞ্চ চলাচল বন্ধ থাকায় বর্তমানে ৪ টি ট্রলারে চলছে পারাপার।

জানা গেছে, নৌরুট দিয়ে প্রতিদিন ৩ টি ছোট ফেরি, ২ টি লঞ্চ ও ৪ টি ইঞ্জিন চালিত ট্রলার চলাচল করে। ফরিদপুর, মাদারীপুর, রাজবাড়ীর সাথে পাবনা, সিরাজগঞ্জ ও রাজশাহী জেলার লাখো মানুষের যোগাযোগের একমাত্র সহজ পথ রাজবাড়ীর জৌকুড়া ও পাবনার নাজিরগঞ্জ নৌরুট। পদ্মায় দ্রুত পানি কমে যাওয়ার ফলে আটকে গেছে ফেরি ও ফেরির পল্টুন। দেখা দিয়েছে তীব্র নাব্য সংকট। ঝুকি এড়াতে বন্ধ রাখা হয়েছে ফেরি ও লঞ্চ চলাচল।

ট্রলারে নদী পাড় হওয়া একাধিক যাত্রী বলেন, প্রতি বছর শীত মৌসুম বা শুস্ক মৌসুম আসলেই এই ঘাটটি বন্ধ থাকে। পদ্মার বুকে চর জেগে উঠার কারণে অন্তত এক মাইল দুরে কেবল যাত্রি পারাপারে ট্রলার সার্ভিস চালু রেখেছে। যেখানে যেতে নেই সংযোগ সড়ক, তাই ঘোরার গাড়িতে বাড়তি ২০ টাকা ভারা দিয়ে ঘাটে এসেছি। এখন ট্রলারে করে নদী পারি দিবো।

জৌকুরা ঘাটের ইজারাদার মোস্তাফিজুর রহমান শরীফ বলেন, পদ্মা নদীতে চর জেগে উঠায় নৌরুটে চলাচলরত ফেরীগুলো স্বাভাবিক ভাবে চলাচল করতে ব্যাহত হচ্ছে। এতে করে আমারো অর্থনৈতিক ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছি। গুরুত্বপূর্ণ এই নৌরুট ফেরি চলাচল বন্ধ থাকায় প্রায় ১৮০ কিলোমিটার ঘুরে কুষ্টিয়া হয়ে পাবনা সহ অন্যান্য জেলায় যাতায়াত করতে হচ্ছে । ঘাটটি বন্ধ থাকায় ভোগান্তিতে পরেছে লাখো মানুষ।

ঘাট কর্তৃপক্ষ সওজ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী শাহরিয়ার শরীফ খান জানান, পদ্মা নদীতে ফেরি চলাচলে কমপক্ষে ১০ ফুট গভীরতা প্রয়োজন হলেও বর্তমানের গভীরতা কম রয়েছে। বর্তমানে নাব্য সংকটের কারনে নৌরুটে ফেরি চলাচল বন্ধ রাখা হয়েছে। সেই সাথে চলমান আছে সংযোগ সড়ক নির্মানের কাজ। জৌকুড়া নাজিরগঞ্জ নৌরুটের ফেরি ও লঞ্চ চলাচল স্বাভাবিক রাখতে সব ধরনের চেষ্টা করা হচ্ছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো খবর..

ads

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত © ২০২০ রাজবাড়ী প্রতিদিন
themesba-lates1749691102